কেন আপনার অনলাইন শপিং বিজনেসের জন্য ই-কমার্স ওয়েবসাইট প্রয়োজন?

0
721
top e commerce company

বর্তমান সময়ে ক্রমবর্ধমান ভাবে বেড়েই চলছে অনলাইন শপিং। মানুষ শুধু মাত্র সময়ের সাথে তাল মেলাতে নয় জীবনকে আর সহজ ভাবে উপভোগ করতে ক্রমান্বয়ে জুকে পড়ছে অনলাইন শপিংয়ের দিকে। কারন অনলাইন শপিং শুধু মাত্র মানুষের সময় বাঁচাচ্ছে না সাথে হাজার হাজার পণ্য থেকে নিজের পছন্দের পণ্য সহজে ক্রয় করে নিতে পারছে।

এই ক্রমবর্ধমান বাজারে আপনি আপনার বিজনেস নিয়ে কতটুকু প্রস্তুত?

বর্তমান সময়ে বাংলাদেশেও অনলাইন শপিং একটি জনপ্রিয় মাধ্যম হয়ে উঠেছে। মানুষ এখন অনলাইন থেকে কেনা-কাটায় অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছে। তাই সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েই চলেচে ই-কমার্স সাইটের আগমন। ই-কমার্স ওয়েব সাইটের পাশাপাশি ফেসবুক কেন্দ্রিক যাকে কিনা এফ-কমার্স বলা হচ্ছে বিশাল একটা অংশ দখল করে নিয়েছে। আমাদের আজকের লেখা এফ-কমার্স কেন্দ্রিক যারা বিজনেস করছেন তাদের কেন আসলে এফ-কমার্স বিজনেস বা পিজিকাল শপকে ই-কমার্স ওয়েব সাইটে রূপান্তর করা দরকার । এখানে ১০ টি পয়েন্ট আলোচনা করা হবে,  যেগুলো কিনা বিশ্বব্যাপী ই-কমার্স বিজনেসের সফলতার পেছনে ওয়েবসাইটের গুরুত্ব আরোপ করে থাকে।

১। প্রায় ৮০% ইন্টারনেট ইউজার কোন না কোনভাবে অনলাইনে কেনাকাটা করেছেনঃ এটা আসলে একটি চমকপ্রদ তথ্য যে, যারা ইন্টারনেট ব্যাবহার করেন তাদের মধ্য প্রায় ৮০ শতাংশ কোন না কোনভাবে অনলাইনে কেনা কাটা করেছেন বা করে থাকেন। এই আশি শতাংশ কাস্টমার তারাই বেশি পেয়ে থাকেন যারা ওয়েব সাইটের মাধ্যমে বিজনেসকে পরিচালনা করে থাকেন। সুতরাং এখানে আপনি পিছিয়ে থাকছেন যদি আপনার মান সম্পন্ন একটি ওয়েব সাইট না থেকে থাকে।

২। বিশাল সংখ্যক অডিয়েন্স এর কাছে পৌঁছানোঃ  আপনার যখন ওয়েব সাইট থাকছে তখন আপনি বিশাল সংখ্যক গ্রাহকের কাছে পৌছাতে পারছেন সেটা শুধু মাত্র লোকাল না বৈশ্বিক ভাবেও করতে পারছেন। আপনি যদি আপনার লোকাল পণ্যকে বিদেশিদের কাছে বিক্রি করতে চান সেই ক্ষেত্রে ওয়েবসাইট হবে আপনার সেরা মধ্যম।

৩। কাস্টমার পণ্য ক্রয়ের ক্ষেত্রে ওয়েব সাইট অনেকটা ইনফ্লুয়েন্স করে থাকেঃ অনেক ভাবতে পারেন এটা কিভাবে? যখন একজন কাস্টমার কোন পণ্য ক্রয় করতে মনস্থির করে সে সর্ব প্রথম ইন্টারনেটে উক্ত পণ্যটি সার্চ দিয়ে থাকে। এখন আপনার পণ্য যদি ওয়েব সাইটে লিস্টিং করে থাকে তখন সার্চ ইঞ্জিন আপনার পণ্যটিও কাস্টমার কে দেখাতে পারে। এছাড়া যারা অনলাইনে কেনা কাটা করে তাদের ক্ষেত্রে দেখবেন যাদের ওয়েব সাইট আছে তাদের থেকে কাস্টমার ক্রয় করতে অনেক স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। উদাহরণ হিসেবে দেখতে পারেন দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপ গুলোর সেলস জেনেরেট হয়ে থাকে ওয়েব সাইট থেকেই। আপনি কখন দেখবেন না আম্যাজন ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে সেল করে। বড় জোর পেইজের মাধ্যমে তাদের বিভিন্ন বিজ্ঞাপন গুলো প্রচার করে থাকে।

৪। ই-কমার্স ওয়েব সাইট কাস্টমারের কাছে পণ্য বাচাই সহজলভ্য করে তোলেঃ যখন আপনার ওয়েব সাইট পণ্য দিয়ে সাজানো থাকবে তখন একজন কাস্টমার খুব সহজে কিন্তু ক্যাটগরি ধরে ধরে আপনার সব গুলো পণ্য দেখতে পারছে। কিন্তু একটি ফেসবুক পেইজে বা পিজিকাল স্টোরে কাস্টমার সেই সুযোগ টা পাচ্ছে না। আপনার সাজানো ওয়েব সাইটটি যখন থাকবে তখন কিন্তু কাস্টমার অনেক গুলো পণ্য দেখে আপনার বিভিন্ন অফার গুলো দেখে সহজে কম্পেয়ার করে পণ্য ক্রয় করতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে কাস্টমার একটি পণ্য কিনতে গিয়ে অনেক পণ্যর সমাহার দেখে সে একের অধিক পণ্য কিনে থাকে।এই ক্ষেত্রে আপনি নিজেকেই উদাহরন হিসেবে নিতে পারেন। আপনি যখন কিনতে থাকেন যখন দেখেন উক্ত ওয়েব সাইটে ১ টার সাথে আরেকটা কিনলে কিছু একটা ফ্রি বা ডিস্কাউন্ট তখন কিন্তু একের অধিক পণ্য কিনতে উৎসাহ পেয়ে থাকেন।

৫। সার্চ ইঞ্জিন থেকে নতুন নতুন কাস্টমার পাচ্ছেনঃ আপনার যখন এসইও ফ্রেন্ডলি ওয়েব সাইট থাকছে তখন কিন্তু আপনি সার্চ ইঞ্জিন থেকে অনেক কাস্টমার পাচ্ছেন। সার্চ ইঞ্জিন থেকে আপনি ফ্রিতেই কাস্টমার গুলো পাচ্ছেন। সার্চ ইঞ্জিন থেকে যখনি আপনি কাস্টমার পাওয়া শুরু করবেন তখনি আপনার বিজনেসে রেভিনিউ কিন্তু কয়েক গুন বেড়ে যেতে থাকবে। কারন সার্চ ইঞ্জিনের ভিজিটর গুলো পেতে আপনাকে কোন ধরনের বিজ্ঞাপনের খরচ করতে হচ্ছে না। সার্চ ইঞ্জিন থেকে নতুন নতুন কাস্টমার পেতে হলে আপনাকে বানাতে হবে এসইও ফ্রেন্ডলি করে ই-কমার্স ওয়েব সাইট।  এই ক্ষেত্রেও ওয়েব সাইটের গুরুত্ব কত বেশি বুজা যাচ্ছে। তাছাড়া আমাদের দেশেও গুগুল থেকে সার্চ করে পণ্য কিনার হার দিনে দিনে বেড়েই যাচ্ছে। এই কাস্টমার গুলো যাদের ওয়েব সাইট আছে এবং এসইও নিয়ে কাজ করে তারা পেয়ে যাচ্ছে। এখানেও ওয়েব সাইট না থাকায় আপনি পিছিয়ে যাচ্ছেন।

৬। একটি ই-কমার্স ওয়েব সাইট আপনার ব্র্যান্ডভ্যলু কয়েক গুন বাড়িয়ে দিবেঃ  আপনার এফ-কমার্স বা পিজিকাল স্টোরের সাথে ই-কমার্স ওয়েব সাইট আপনার ব্র্যান্ড ভ্যলু কয়েক গুন বাড়িয়ে দিচ্ছে। তা ছাড়া পণ্য ক্রয়ের ক্ষেত্রে একজন কাস্টমার ফেসবুক পেজ থেকে যাদের ওয়েব সাইট আছে তাদের প্রাদান্য দেয় বেশি। ওয়েব সাইটের মাধ্যমে আপনি মাল্টি টাইপ মার্কেটিং করতে পারছেন যাতে বৃদ্ধি পাচ্ছে আপনার ব্র্যান্ডভ্যলু। এছাড়া আপনার ওয়েব সাইট পরিচিতি বাড়ার সাথে সাথে আপনার কম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের ব্র্যান্ড ভ্যালু বেড়ে যাচ্ছে। আপনার ওয়েব সাইট থাকার ধরুন আপনার সাইটের বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচারণা বাড়তে থাকবে। আপনি ডোমেইন নাম যত পরিচিতি পাবে ততই আপনার বিজনেসের প্যাসিভ এবং খরচবিহীন কাস্টমার আসা শুরু করবে।

৭। আপনি অফলাইনে থাকলেও আপনার বিক্রি বন্ধ হচ্ছে নাঃ ধরুন আপনার ফেসবুক পেইজে না থেকে অফলাইনে গেলেন তখন কিন্তু আপনার বিক্রি থমকে যাচ্ছে । কিন্তু যখনি আপনার ওয়েব সাইট থাকছে কাস্টমার এসে আপনার ওয়েবসাইটে পণ্যর বিস্তারিত দেখে অর্ডার করে রেখে যাচ্ছে । এছাড়া বন্ধের দিন গুলোতে আপনার বিক্রি সচল রাখতে ওয়েব সাইট হচ্ছে সবচেয়ে বড় মাধ্যম।আপনার বিক্রি ২৪ ঘণ্টা সচল থাকছে।

বর্তমানে সময়ের ব্যাস্ততার কারনে অনেকে রাতের বেলা ফ্রি হয়ে অনলাইন পণ্য অর্ডার করে। সেই ক্ষেত্রে আপনার সচল ওয়েব সাইট থাকলে কাস্টমার ওয়েবসাইটে এসে পছন্দ মত পণ্য দেখে পণ্যর বিস্তারিত ওয়েব সাইট থেকে জেনেই অর্ডার করতে পারছে।বাংলাদেশ রিজিওনে ফেসবুকের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে সবচেয়ে বেশি মানুষ ইন্টারনেটে থাকে ৯ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত।

৮। কনভার্সন রেট বৃদ্ধি করেঃ আপনি যত বড় ব্র্যান্ড বা যত বেশি সেল করেন না কেন আপনার যদি রিপিড কাস্টমার কনভার্সন বৃদ্ধি না পায় আপনি লাভের অংক বেশি বাড়াতে পারবেন না। কারন আপনার কারেন্ট বিজ্ঞাপন থেকে যেই সেল আসে সেটা আসে আপনার দেয়া বিজ্ঞাপনের কারনে। যার যত বেশি রিপিড কাস্টমার আসে তার রেভিনিউ তত বেশি। এই ক্ষেত্রে আপনার যদি একটি ওয়েব সাইট থাকে তখন কিন্তু আপনার রিপিড কাস্টমার বেড়ে যাওয়ার চান্স বেশি থাকে। অনেক ক্ষেত্রে কাস্টমার ভালো সার্ভিস পেয়ে থাকলে সেই ওয়েব সাইটের নাম মনে রাখে অথবা কথাও সেভ করে রাখে লিংকটি।

আবার অনেক সময় দেখা যায় কাস্টমার বিজ্ঞাপনের কারনে আপনার পেইজে আসলো কিন্তু সে আসলে পরে কিনতে চাচ্চে তখন আপনার ওয়েব সাইট থাকলে কিন্তু কাস্টমার উক্ত ওয়েব সাইট মনে রেখে দেয় বা লিংকটি কোথাও সেভ করে রাখে।

৯। কাস্টমার রি-টার্গেট করা বা এডভান্স লেভেলে বিজ্ঞাপন দেয়ার সুবিধাঃ আপনার যদি একটি ওয়েব সাইট থেকে সেই ক্ষেত্রে ফেসবুকের বেশ কিছু এডভান্স লেভেলের বিজ্ঞাপন সুবিধা আপনি পেয়ে থাকবেন। ঠিক তেমনি একটি সিস্টেম হচ্ছে রি-টার্গেট করা। ধরুন কোন একজন কাস্টমার ফেসবুকের সাথে কানেক্ট করে রাখা আপনার ওয়েব সাইট থেকে কোন একটি পণ্য দেখেছে কিন্তু কিনে নাই। ফেসবুক উক্ত কাস্টমার কে মনে রেখে দেয় এবং সেই কাস্টমারের কাছে বার বার আপনার পণ্য দেখতে থাকে। অনেকটা ম্যানুফুলেট করে ফেলে কাস্টমারকে পণ্যটি কিনতে। সবচেয়ে বড় উদাহরণ আপনি নিজেই হতে পারেন। আপনি যখন অনলাইনে কোন পণ্য দেখে আসেন কোন ওয়েব সাইটে দেখবেন সেই পণ্য বার বার আপনার ফেসবুক ওয়ালে দেখাচ্ছে।

এছাড়া ওয়েব সাইট থাকলে আপনি শুধু ফেসবুক নয় গুগুল বা অন্য মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। সেই ক্ষেত্রে ফেসবুক থেকেও আপনার নির্ভরশীলতা কমবে।

১০। কাস্টমারের ডাটা সংরক্ষণ করে রাখতে পারা এবং সম্পূর্ণ বিজনেস ডাটা এনালাইসিস করতে পারাঃ সাধারনত আমরা দেখি যে আমরা যদি কোন নামি কম্পানি বা ওয়েব সাইট থেকে পণ্য কিনে থাকি তখন আমরা ক্রমাগত বিভিন্ন বিজ্ঞাপন মূলক মেইল , ম্যাসেজ বা কল পেয়ে থাকি। আপনি যদি ওয়েব সাইট মেইন্টেইন করে থাকেন সেই ক্ষেত্রে আপনি আপনার পূর্বের কাস্টমারদের ডাট গুলো সংরক্ষণ করে রাখতে পারছেন এবং তাদেরকে বিভিন্ন বিজ্ঞাপনমূলক ম্যাসেজ বা মেইল পাঠাতে পারছেন। এছাড়া অনেকের ওয়েব সাইটে বিজনেসের ডাটা এনালাইসিস করার মত বিভিন্ন টুলস থাকে যাদে কাস্টমার কোন পণ্য বেশি নিচ্ছে কোন সময় কোনটি বেশি যাচ্ছে তা নিয়ে এনলাইসিস করে মার্কেটিং করলে অনেক বেশি রেসপন্স পাওয়া যায়।

এছাড়া ওয়েব সাইটের মাধ্যমে আপনার সেলস হিসাব থেকে শুরু করে আরও বিভিন্ন হিসাব বা অর্ডার গুলোর রিয়েল আপডেট কাস্টমার কে দিতে পারছেন।

শেষকথাঃ আসলে অনলাইন শপিং বিজনেস বা ই-কমার্স বিজনেসের সুদূরপ্রসারি প্রান হচ্ছে ওয়েব সাইট। বিশ্বের বা বাংলাদেশের জনপ্রিয় সকল অনলাইন শপিং মাধ্যম করে তাদের ওয়েব সাইট দিয়েই চিনে থাকে তাদের ফেসবুক পেইজ দিয়ে নয়। ফেইসবুক পেইজ হচ্ছে অনলাইন বিজনেস করার বিজ্ঞাপনের একটি টুলস মাত্র। যেটা দিয়ে আপনার সেলস আসতে পারে বা এটা এক ধরনের পত্রিকা বা বিলবোর্ডে পণ্য বিজ্ঞাপন দেয়ার মত। আর সেই বিজ্ঞাপন দেখে মানুষ ল্যান্ড করবে বা কিনতে আসবে আপনার ওয়েব সাইট থেকে তবেই আপনার ব্যাবসা আসলে সঠিক পথে এগিয়ে যাবে।

বিদ্রঃ বিডিটাস্ক নিয়ে এসেছে নতুন উদ্যোগতা এবং এফ-কমার্স দের জন্য দারুন ই-কমার্স সলুয়েশন। শুধু মাত্র বিডিটাস্ক থেকেই আমরা দিচ্ছি কোন ধরনের ইন্সটলমেন্ট ফি ছাড়া সম্পূর্ণ ইকমার্স সিস্টেম সাথে ওয়েব সাইট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here